পবিত্রতা ও নামাজের বিধান বই ডাউনলোড

794

পবিত্রতা ও নামাজের বিধান

পবিত্রতা ও নামাজের বিধান বই ডাউনলোড 

পবিত্রতা ও নামাজের বিধান – বৃষ্টি ও সমুদ্রের পানি পবিত্রতা অর্জনের জন্য ব্যবহার করা যায়। অনুরুপ তাহারাত হাসিলের উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত পানি পুনর্বার ব্যবহার করা যায়। যে পানির সাথে কোন পবিত্র জিনিস মিশে যায় এবং তা পানি বলেই পরিগণিত হয়। তবে যদি নাপাক কোন কিছু মিশে গিয়ে পানির রং, স্বাদ, অথবা গন্ধকে পরিবর্তন করে দেয়, তাহলে অপবিত্র বলে গণ্য হবে। তা ব্যবহার করা জায়েয হবে না। কোন পরিবর্তন সূচিত না হলে, তা পবিত্র বিবেচিত হবে এবং ব্যবহার করা জায়েয হবে।

পান করার পর কোন পাত্রে অবশিষ্ট পানি থাকলে, তা পবিত্রতা অর্জনের জন্য ব্যবহার করা যায়, তবে কুকুর বা শূকর তা হতে পান করলে নাপাক হয়ে যাবে।অপবিত্রতার অর্থ হচ্ছে এমন মলিনতা, অশুচিতা ও অপবিত্রতা, যা থেকে একজন মুসলমানকে বেঁচে থাকতে হয় এবং কাপড়ে লাগলে ধুয়ে ফেলতে হয়।  কাপরে বা শরীরে অতরল কোন অপবিত্র জিনিস লাগলে তা দূর হওয়া পর্যন্ত ধুতে হবে।

আরও বই পড়ুন – ভ্রান্ত তাবিজ কবজ

যেমন, রক্ত তবে যদি ধুয়ে ফেলার পরও তার চিহ্ন থেকে যায়, তবে তাতে কোন অসুবিধা নেই। যদি এমন তরল পদার্থ হয়, যা কাপঢ়ে বা শরীরে লাগলে দৃষ্টি গোচর হয় না, তা একবার ধুয়ে ফেললে যথেষ্ট হবে। জমিতে বা মাটিতে কোন তরল অপবিত্র জিনিস লাগলে, পানি ঢাললে বা শুকিয়ে গেলে তা পবিত্র হয়ে যায়। তবে যডদ তা অতরল হয়, তাহলে তা দূর না করা পর্যন্ত পবিত্র হয় না। ওযু ব্যতীত নামাজ গৃহীত হয় না।

পবিত্রতা ও নামাজের বিধান

যার প্রমাণ নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি অসাল্লামের বাণী। তিনি বলেছেন – “তোমাদের মধ্যে কেউ অপবিত্র হয়ে গেলে, ওযু না করা পর্যন্ত আল্লাহ তার নামাযকে গ্রহণ করেন না” (তিরমিযী-আবু দাউদ) ওযু পর্যায়ক্রমে ও বিনা বিরতিতে করতে হবে। কেননা, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি অসাল্লাম এক ব্যক্তিকে ওযু করতে দেখে বললেন, “অপচয় করো না” (ইবনে মাজা) 

নামাজ ইসলামের মূল ভিত্তিসমূহের দ্বিতীয় ভিত্তি। প্রাপ্তবয়স্ক জ্ঞান সম্পন্ন সকল মুসলিম নর-নারীর উপর নামাজ ওয়াজিব। আলেমদের ঐক্যমত্যানুযায়ী নামাজ ত্যাগকারী কাফের। আর সর্ব প্রথম নামাজ সম্পর্কেই বান্দাকে কিয়ামতের দিন জিজ্ঞাসা করা হবে। দিন ও রাতে পাঁচ ওয়অক্ত নামাজ যথা, ফজর, যোগর, আসর, মাগরিব ও এশা জামা’আত সহকারে আদায় করা প্রথ্যেক পুরুষের উপর ওয়াজিব।

মুসলমানদের কর্তব্য হলো, ধীরস্থিরতার সাথে মসজিদে আসা। অনুরুপ মসজিদে প্রবেশ করে বসার পূর্বে দু’রাকা’আত নামায আদায় করা সুন্নাত। নামাজে লজ্জাস্থান ঢাকা অত্যাবশ্যক। পুরুষদের লজ্জাস্থান হলো, নাভি থেকে নিয়ে হাঁটু পর্যন্ত। আর নারীদের সর্বাঙ্গই লজ্জাস্থান।শুধু নামাযে মুখম্নডল খুলে রাখতে পারবে। আর ক্বিবলামূখী হয়ে নামাজ পড়া নামাজ গ্রহণ হওয়ার জন্য শর্ত। নামাজকে সঠিক সমেয় আদায় করা ওয়াজিব। সুতরাং সময়ের পূর্বে নামজ পড়া ঠিক নয়। অনুরুপ বিলম্ব করে নামাজ পড়াও হারাম।

পবিত্রতা ও নামাজের বিধান

DOWNLOAD NOW


ভিডিউ টিউটোরিয়াল পেতে আমাদের চ্যনেলটি সাবস্ক্রাইব করুন।

Online Academy BD