আশুরা ও কারবালা pdf book download

রচনায়ঃ আবু আহমাদ সাইফুদ্দীন বেলাল এবং সম্পাদনায়ঃ উমার ফারুক আব্দুল্লাহ

782
আশুরা ও কারবালা pdf book download
আশুরা ও কারবালা

আশুরা ও কারবালা pdf book বইটিতে আছে

  • আশুরার অর্থ
  • আশুরার ফজিলত
  • কারবালা ও মানুষের প্রকার
  • আশুরার রোজা রাখার নিয়ম
  • আশুরার কিছু বিধান
  • আহলে বাইতের যারা শহীদ হলেন
  • আশুরার রোজা ও মানুষের প্রকার

আরও বই পড়ুন – আসান ফেকাহ pdf book download (২য় খণ্ড)

  • কারবালার মর্মান্তিক ইতিহাস
  • সমস্যার সূচনা
  • কারবালা কেন্দ্রিক বিদাত, কুসংস্কার ও মিথ্যা কেচ্ছা কাহিনী
  • মিথ্যা ও কুসংস্কার মূলক একটি কেসসা
  • কারবালা ও কিছু জাল -যয়ীফ হাদীস
  • উপসংহার

এই সকল বিষয় নিয়ে বয়টি লেখা। নিম্নে বইটির কিছু অংশ তুলে ধরা হল।

আশুরার অর্থ – আশুরা ও কারবালা pdf book

আশুরা শব্দটি শুনতেই সাধারণ মানুষের যেন গা শিউরে ওঠে, কারণ আশুরা বলতেই তাদের ধারণা কারবালা। আর কারবালা অর্থ নবী (সাঃ) এর নাতি ইমাম হুসাইন ইবনে আলী রা. এর স্বপরিবারে মর্মান্তিক শাহাদাতের ঘটনা। কিন্তু আসলে আশুরা অর্থ চন্দ্র বছরের প্রথম মাস মোহররমের দশম তারিখ। আল্লাহ তায়ালা ১২টি মাসের মাঝে ৪টি মাস যথা: যিলকদ, জিলহজ্ব, মোহররম ও রজবকে হারাম তথা সম্মানিত মাস করেছেন।

আশুরা ও কারবালা pdf book – আল্লাহ তায়ালার বাণী: “নিশ্চই আল্লাহর বিধান ও গণনায়” মাস বারটি, আসমানসমূহ ও পৃথিবী সৃষ্টির দিন থেকে। তন্মধ্যে চারটি হারাম-সম্মানিত। এটিই সুপ্রতিষ্ঠিত বিধান, সুতরাং এর মধ্যে তোমরা নিজেদের প্রতি জুলুম করো না। [সূরা তাওবা: ৩৬]

আশুরার ফজিলতঃ হিজরি সালের ১২টি মাসের মধ্যে চারটি হারাম মাস। যিলকদ, যিলহজ্ব, মোহররম ও রজব। শুরু হারাম মাস মোহররম ও শেষ হারাম মাস যিলহজ্ব এবং মধ্যখানে হারাম মাস রজব। আরবরা মোহররম মাসকে “স্বফরুল আওয়াল” তথা প্রথম সফর নাম রেখে যুদ্ধকে তাদের ইচ্ছামত হালাল ও হারাম করতো। আল্লাহ তা’য়ালা ইহা বাতিল করে দিয়ে তার ইসলামি নামকরণ করলেন আল-মুহাররাম। তাই গুরুত্বের জন্য মোহররম মাসকে “শাহরুল্লাহিল মুহাররাম” তথা আল্লাহর মোহররম মাস বলা হয়েছে।

আশুরার দিন নিঃসন্দেহে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন। এ দিন আমাদেরকে এক ঐতিহাসিক ঘটনার কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। দ্বীন হেফাজতের উদ্দেশ্যে হিজরত ও হক প্রতিষ্ঠার জন্য এক মহান দিন। আর এ জন্যই দিনটিকে বিশেষ এক ইবাদত রোজার সাথে স্মরণ করা প্রতিটি মুসলিমের উচিৎ।

আশুরা ও কারবালা pdf book –  একাধিক সহীহ হাদীস দ্বারা সুস্পষ্ট যে, মূসা (আঃ) ও তাঁর জাতি বনি ইসলাঈল ফেরাউনের অন্যায়-অত্যাচার, নিষ্পেষণের জাঁতকল ও গোলামী থেকে মিশর ছেড়ে সাগর পার হয়ে এ দিনে নাজাত পেয়েছিলেন। তাই আল্লাহর শুকরিয়া ও কৃতজ্ঞার্থে এ দিনে রোজা রেখেছিলেন এবং পরবর্তী সময়ে বনি ইসরাঈলরাও রোজা রাখত। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন, যার ফজিলত ও তাৎপর্য অধিক।

DOWNLOAD NOW


ভিডিউ টিউটোরিয়াল পেতে আমাদের চ্যনেলটি সাবস্ক্রাইব করুন।

Online Academy BD