আরব জাতি ইসলামের পূর্বে ও পরে বই ডাউনলোড

রচনায়ঃ সায়্যেদ আবুল হাসান আলী নদভী

598
আরব জাতি ইসলামের পূর্বে ও পরে
আরব জাতি ইসলামের পূর্বে ও পরে

আরব জাতি ইসলামের পূর্বে ও পরে

ইসলামের পূর্বে আরবদের অবস্থা কেমন ছিল এবং ইসলামের পরে কেমন হল

আরবদের মধ্যে থেকে আল-আরব আল আদনানিয়া নামে প্রসিদ্ধ জনগোষ্ঠি যাদের বংশ পরিক্রমা ইসলামইল হতে আরম্ভ হয়েছিল, তারােই প্রকৃত পক্ষে ইসলামের আগমনের পূর্বে সঠিক দ্বীনের অনুসারী ও তাওহীদে বিশ্বাসী ছিল। তারা এক আল্লাহর ইবাদত করত এবং দ্বীনে ইবরাহীমের অনুসরণ করত। ইসমাইলী বংশধরদের প্রচেষ্টা ও তাদের একনিষ্ঠ দাওয়অতের কারণেই সমগ্র আরব ভূখন্ডের আনাচে-কানাচে সঠিক দ্বীন তথা তাওহীদের ব্যাপক প্রচার-প্রসার ঘটেছিল।

দীর্ঘ এক যুগ অতিবাহিত হওয়া পর্যন্ত আরবরা কোন প্রকার শিরক ও কুসংস্কালে লিপ্ত হয়নি। তারা এক আল্লাহর ইবাদত করত, তাদের মধ্যে কোন শিরক তথন পর্যন্ত স্থান পায়নি। তবে নবুওয়তের যুগ থেকে তাদের সময় অনেক দীর্ঘ হয়ে যাওয়া এবং কোন প্রকার দাওয়াত বা সঠিক দ্বীনের আহ্বানকারী না থাকা তাদের মধ্যে শিরকের অনুপ্রবেশের একটি রাস্তা তৈরি করে নিল।

আরব জাতি ইসলামের পূর্বে ও পরে

এরই সূত্র ধরে তাদের থেকেই আমর ইবনে লুহাই নামে এক লোকের আবির্ভাব হল, যে এ সুযোগটিকে কাজে লাগালো। লোকটি তাদের মাঝে খু সম্মানী ও মর্যাদার অধিকারী ছিল। কোন কারণে লোকটি সিরিয়ায় গেলে, সেখানে দেখতে পেল, এখানকার লোকেরা মূর্তির পূজা করছে। তার নিকট তাদের মূর্তি পূজা করাটা খুব পছন্দ হয়। সে ভাবলো যেহেতু শিরিয়া, আসমানী কিতাব ও আসমানী ধর্মসমূহের আবাসভূমি সুতরাং এখানে যে দ্বীন চলবে তা্ি হবে সত্য দ্বীন এবং এখানকার লোকেরাই হবে সত্যের উপর প্রতিষ্ঠিত জনগোষ্ঠি।

আরও বই পড়ুন – আপনার সন্তানকে কি শেখাবেন কেন শেখাবেন

তাদের বাইরে যারা থাকবে তারা হবে ভ্রষ্ট, পথহারা ও বিপথগামী। তারপর সে সিরিয়া থেকে তার সাথে হুবল নামক একটি দেবতা মক্কায় নিয়ে আসল। মক্কায় এনে দেবতাটিকে কাবা ঘরের মাঝে স্থাপন করল এভং মক্কাল লোকদেরকে দেবতাটির ইবাদাতের জন্য আহ্বান করল। তার তার ডাকে সাড়া দিল। আর এভাবেই মক্কাবসীরা দেবতার ইবাদাত করতে আরম্ভ করল। মক্কাবাসীদের দেখে হিজাযের আরবরাও তাদের অনুকরণ করল। কারণ তারা ছিল বােইতুল্লাহর অভিভাবক এবং হেরমের অধিবাসী।

আরব জাতি ইসলামের পূর্বে ও পরে

সুতরাং তারা যা করবে আশপাশের লোকেরা তারই অনুকরণ করবে, এটা ছিল একেবারেই স্বাভাবিক। এভাবে কিছুদিন চলতে চলতে সমগ্র আরবে দেবতার পূজা তথা শিরক ছড়িয়ে পড়ল।

আর তাদের চিন্তা চেতনা ও বিশ্বাসে জাহিলিয়্যাত সুস্পষ্ট হয়ে উঠল, যার প্রভাবে তাদের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে জাহিলিয়্যাতের অন্ধকার ছড়িয়ে পড়ল। যদিও তারা বিশ্বাস করত যে, আল্লাহই স্রষ্টা, তিনিই মালিক এবং তিনিই পরিচালনাকারী। তারপরও তারা এই সকল ইলাহগুলোর ইবাদত করত। কারণ, তারা তাদের জাহিলিয়্যাতকে অকাট্য মনে করত।

আরব জাতি ইসলামের পূর্বে ও পরে

আল্লাহ বলেন, জেনে রেখ, আল্লাহর জন্যই বিশুদ্ধ ইবাদত আনুগত্য। আর যারা আল্লাহ ছাড়া অন্যদেরকে অভিভাবক হিসেবে গ্রহণ করে তারা বলে, আমরা কেবল এজন্যই তাদের ইবাদত করি যে, তারা আমাদেরকে আল্লাহর নিকটবর্তী করে দেবে। যে বিষয়ে তারা মতভেদ করছে আল্লাহ নিশ্চই সে ব্যাপারে তাদের মধ্যে ফয়সালা করে দেবেন। যে মিথ্যাবাদী কাফির, নিশ্চই আল্লাহ তাকে হিদায়াত দেন না। [সূরা যুমার, আয়ত ৩]

আরব জাতি ইসলামের পূর্বে ও পরে

DOWNLOAD NOW


ভিডিউ টিউটোরিয়াল পেতে আমাদের চ্যনেলটি সাবস্ক্রাইব করুন।

Online Academy BD